সাদমান ও মৃত্যুঞ্জয় হোম কোয়ারেন্টাইনে

img

ক্রীড়া ডেস্ক:

অস্ট্রেলিয়া ফেরত বাঁহাতি ওপেনার সাদমান ইসলাম অনিক ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলের মৃত্যঞ্জয় চৌধুরী নিপুণকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে বিসিবি।

কব্জির চোটের কারণে সাদমান ও কাঁধের চোটের সার্জারি করাতে মৃত্যঞ্জয়কে চলতি মাসের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ায় পাঠায় বিসিবি। এই দুইজনের সাথে যান বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী। দিন দুয়েক আগে দেশে ফেরা তিনজনই দেশে ফিরে করোনা ভাইরাস সচেতনতায় আছেন হোম কোয়ারেন্টাইনে।

ভারত সফরের টেস্ট সিরিজেই কব্জিতে চোট পান বাঁহাতি ব্যাটসম্যান সাদমান ইসলাম। দেশে ফিরে বিপিএলে দুটি ম্যাচ খেললেও চোটের তীব্রতা বাড়ায় যেতে পারেননি সবশেষ পাকিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট খেলতে।

অন্যদিকে কাঁধের চোটে যুব বিশ্বকাপের মাঝপথেই দেশে ফিরতে হয় বাঁহাতি পেসার মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীকে। জিম্বাবুয়ে ও স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের ম্যাচ দুটি খেলেই চোটে পড়ার ফলে শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপ জয় করে আকবর আলির দলের সাথে ফেরা হয়নি মৃত্যুঞ্জয়ের।

উন্নত চিকিৎসার জন্য দুজনকেই যে অস্ট্রেলিয়া পাঠানো হবে তার সিদ্ধান্ত হয় প্রায় মাসখানেক আগেই। চলতি মাসের শুরুতে দুজনকে পাঠানোও হয়, সঙ্গে ছিলেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী। ১৮ মার্চ সফল অস্ত্রোপচার শেষে ফিরেছেন তিনজনই। করোনা শঙ্কার মধ্যেও দেশে ফিরে অন্যদের সুরক্ষার কথা চিন্তা করে সরকারী নির্দেশনায় তিনজনই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেন দেবাশীষ চৌধুরী নিজেই।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা দু’দিন হলো অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরেছি। আমার সঙ্গে অস্ত্রোপচার শেষে দেশে ফিরেছে অনিক ও মৃত্যুঞ্জয়ও। এখন তিনজনই হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি। সরকারের এটি নির্দেশ। আমাদের মানতেই হবে। আমরা যদি না মানি অন্যদের জন্য এটি বাজে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।’

বিসিবির এই চিকিৎসক মনে করেন অন্যদের সুরক্ষার কথা বিবেচনায় নিয়ে বিদেশ ফেরত সবারই এটা মেনে চলা উচিত, ‘এটা বিদেশ থেকে যারা আসবে সবারই উচিত। নিজে যেন ভুল করে অন্যের জন্য বিপদ না হয় এটাই ভাবতে হবে। করোনা নিয়ে কোন ঝুঁকি নেয়া যাবে না।’

সফল অস্ত্রোপচারের পর ভালো আছেন অনিক-মৃত্যুঞ্জয় দুজনেই তবে মাঠে ফিরতে মাস তিনেক সময় লাগতে পারে জানান বিসিবি প্রধান চিকিৎসক, ‘ওরা দু’জন (সাদমান-মৃত্যুঞ্জয়) ভালো আছে। মাঠে ফেরার বিষয়টা এখন বলা কঠিন। তবে তিন মাস লাগবেই। বেশিও লাগতে পারে।’