জ্বর, সর্দি, কাশি হলেই করোনা আতঙ্ক নয়

img

ডেস্ক প্রতিবেদকঃ 

জ্বর, সর্দি, কাশি হলেই কি তাহলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছে বলে আপনি উদ্বিগ্ন হয়ে পড়বেন? নিজেকে গৃহবন্দি করে ফেলবেন? ছুটে যাবেন করোনাভাইরাস সংক্রমণ হয়েছে কি না সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষানিরীক্ষা করাতে?

চিকিৎসকেরা বলছেন, না। তার কোনো দরকার নেই। তাতে অযথা মানুষকে ভীতসন্ত্রস্ত করে তোলা হবে। কারণ, মরসুম বদলালে অনেকেরই জ্বর, সর্দি, কাশি হয়। যারা ‘ক্রনিক পেশেন্ট’, তাদের তো বেশিরভাগই হয় জ্বর, সর্দি, কাশি।

কিন্তু এখন যা পরিস্থিতি, তাতে ডাক্তারদের পরামর্শ, জ্বর, সর্দি, কাশি হলেই চলে যান ডাক্তারের চেম্বারে। দেরি করবেন না। বা অবহেলা করে বাড়িতেই চেনাজানা ওষুধ খেয়ে তা কমানোর চেষ্টা করবেন না। তা হলে বরং হিতে বিপরীত হতে পারে।

শুধু জ্বর কিংবা ঠান্ডা মানেই আপনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন। তাই শুধু এমন লক্ষণ দেখা দিলেই হাসপাতালে না ছোটার আহ্বান জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, শুধু জ্বর হলেই আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। তবে টানা জ্বর, শুকনা কাশি ও শ্বাসকষ্ট করোনাভাইরাসে আক্রান্তের লক্ষণ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার এই প্রজাতিতে সংক্রমণ হলে সব সময় জ্বরই থাকে। তবে অন্য ভাইরাস জ্বরে তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকে। সাধারণ ঠান্ডা, জ্বর কিংবা এলার্জিজনিত সমস্যায় মাখা ব্যথা থাকলেও কোভিড নাইন্টিনে মাথাব্যথা হতে পারে। থাকতে পারে সাধারণ ব্যথাও। অন্য ভাইরাসজনিত জ্বরের মতো অবসাদ কিংবা দুর্বলতা না থাকলেও মাঝে মধ্যে এমনটা হতে পারে। তবে সর্দি, কাশি কিংবা বার বার হাঁচির লক্ষণ কোভিড নাইন্টিনের। আবার অন্য জ্বরের ক্ষেত্রে গলাব্যথা থাকলেও কোভিড নাইনটিনের বেলায় তা বারবার অনুভূত হবে। তবে অন্য জ্বরে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা তেমন না হলেও করোনা মারাত্মক হলে এ সমস্যা প্রকট হয়।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ইউজিসি অধ্যাপক এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেছেন, জনগণের আতঙ্কিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে সচেতন থাকতে হবে। প্রবাসীদের ক্ষেত্রে বেশি সচেতন থাকতে হবে।