''বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের ফাঁসি কার্যকরে আইনগত কোনও বাধা নেই''

img

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

সদ্য গ্রেপ্তার হওয়া বঙ্গবন্ধু হত্যার ফাঁসির আসামি বরখাস্তকৃত ক্যাপ্টেন আব্দুল মাজেদের ফাঁসির রায় দ্রুত কার্যকর চায় আওয়ামী লীগ। দেশের সংবিধান ও প্রচলিত ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী মাজেদের ফাঁসির রায় কার্যকরের ক্ষেত্রে আইনগত কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

৮ এপ্রিল বুধবার আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাংলাদেশ সংবিধান ও দেশের প্রচলিত আইনের সকল বিচারের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় প্রদান করা হয়েছিল।’

বিচারিক আদালত কর্তৃক প্রদত্ত ফাঁসির রায় হাইকোর্ট হয় সুপ্রিম কোর্টে গেলে সুপ্রিম কোর্ট রায় বহাল রাখে। বিচারের সকল পর্যায়ে নিম্ন আদালত থেকে শুরু করে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত আসামিপক্ষের আইনজীবী তাদের প্রতিনিধি হিসেবে আদালতে উপস্থিত ছিল। এবং উভয় পক্ষের সম্পূর্ণ শুনানির মধ্যে দিয়ে বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

তিনি বলেন, ‘আসামিপক্ষের আইনজীবী সর্বশেষ সুপ্রিম কোর্টে রিভিউ আবেদন করলে আদালত তা খারিজ করে দেয়। এই খুনির ফাঁসির রায় সম্পূর্ণ বিচার প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। দেশের সংবিধান ও প্রচলিত ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী ফাঁসির রায় কার্যকরের ক্ষেত্রে আইনগত কোনও বাধা নেই। নির্দিষ্ট মেয়াদে ফাঁসির রায় কার্যকর করার কথা আইনে উল্লেখ আছে‌।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ফাঁসির রায় কার্যকর করার জন্য আইনগতভাবে যা করা দরকার সেটা শুরু হয়ে গেছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে সেটা জানানো হয়েছে। আমরা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে অবিলম্বে ফাঁসির রায় কার্যকর করার জন্য দাবি জানাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাজেদকে গ্রেফতারের পর বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আরো পাঁচ দন্ডপ্রাপ্ত আসামী খুনি রাশেদ চৌধুরী, নূর চৌধুরী, রফিকুল হক ডালিম, কর্নেল রশিদ ও মুসলেউদ্দিন রিসালাদার পলাতক আছে।  তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য দীর্ঘদিন ধরে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সেটা আরো জোরদার করার দাবি জানাচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে এই জাতির অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করা হয়। পৈশাচিক ও নারকীয় এই হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে শুধু ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয় নি, একটি দল ও তার আদর্শকে নিশ্চিহ্ন করার অপচেষ্টা করা হয়নি বরং একটি সদ্য স্বাধীন জাতি রাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাকে গলা টিপে হত্যা করার অপচেষ্টা করা হয়েছিল।

করোনা সংকট প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা একটি বৈশ্বিক ও জাতীয় সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। এখন আমাদের প্রধানতম কাজ হচ্ছে, করোনাভাইরাসে সৃষ্ট সংকট ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করা। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে করোনা সংকট মোকাবেলার পাশাপাশি দলের নেতা-কর্মীসহ সারাদেশের জনগণকে মতলবি মহলের ষড়যন্ত্রমূলক তৎপরতা সম্পর্কে সতর্ক থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।