অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত, প্রিন্সিপাল শাখা লকডাউন

img

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

রাষ্ট্রায়ত্ব অগ্রণী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল শাখার একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় শাখাটি লকডাউন করা হয়েছে। নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় শাখাটিতে কর্মরত ৬৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকটির প্রিন্সিপাল শাখা লকডাউন করা হয়েছে। রাজধানীর মতিঝিলে অগ্রণী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ভবনের নিচ তলায় প্রিন্সিপাল শাখা।

করোনা আক্রান্ত কর্মকর্তা শাখাটির রেমিট্যান্স শাখায় কর্মরত ছিলেন। আক্রান্ত কর্মকর্তার বয়স আনুমানিক ৩০ বছর। গত রোববার তিনি সর্বশেষ অফিসে যান। এ জন্য ওই দিন শাখাটিতে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. শামস্-উল-ইসলাম। তিনি বলেন, গত রবিবার ওই কর্মকর্তা কাজ শেষে বাসায় ফেরার পর শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করেন। এ জন্য তাকে ছুটি দেয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে তার করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করা হয়। বুধবার বেলা ১১টায় পরীক্ষার ফলাফল এলে দেখা যায়, তিনি করোনাভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, আক্রান্ত কর্মকর্তার শারীরিক অবস্থা এখনো স্থিতিশীল। খুব বেশি জ্বর বা অন্য শারীরিক উপসর্গগুলো দেখা যায়নি। সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে আমরা প্রিন্সিপাল শাখা লকডাউন করে দিয়েছি। একই সঙ্গে শাখাটিতে কর্মরত ৬৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ব্যাংকের প্রিন্সিপাল শাখা বন্ধ ঘোষণা হওয়ায় এখন ব্যাংকের কার্যক্রম চালাতে অনেকটা বিঘ্ন ঘটবে। বাকি সবাইকে কোয়ারেন্টাইনে যেতে বলা হয়েছে।

বিশ্বস্ত একাধিক সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তার গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর জেলায়। ঢাকার বনশ্রী এলাকায় পরিবারের সঙ্গে তিনি বসবাস করেন।