চট্টগ্রাম নগরীর ১২ থানা করোনার ‘রেড জোনে’

img

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

করোনা হটস্পট বিবেচনায় নগরীর ১২ থানা এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগ। এছাড়া বাকি থানাগুলোকে বিভিন্ন জোনে ভাগ করা হয়।

গতকাল চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে জোন ভাগ করার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। তালিকায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০০ এর ওপরে থানা এলাকাকে রেড জোন, আক্রান্তের সংখ্যা ১০ থেকে ৯০ এর মধ্যে সেসব থানাকে ইউলো জোন, ১ থেকে ১০ জনের মধ্যে থাকা এলাকা ব্লু জোন এবং আক্রান্তের সংখ্যা শূন্য থাকা এলাকাকে গ্রিন জোনে রাখা হয়েছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, স্বাস্থ্য বিভাগের তালিকায় ৩২৪ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ায় শীর্ষে রয়েছে কোতোয়ালী থানা। এছাড়া পাঁচলাইশে ২১৫, খুলশীতে ১৮৩, পতেঙ্গায় ১৬৮, হালিশহরে ১৬৭, ডবলমুরিংয়ে ১৪১, বন্দরে ১২৩, পাহাড়তলীতে ১১৪, ইপিজেডে ১১২, বন্দরে ১১১, চকবাজারে ১১১ ও চান্দগাঁওয়ে ১০৬ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ায় এসব থানাকে রেড জোনে রাখা হয়েছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ১০০ এর উপরে যেসব থানায় করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে, সেসব থানাকে রেড জোনে রাখা হয়েছে। যেসব থানায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ থেকে ৯০ এর মধ্যে সেসব থানাকে ইউলো জোনে, ১ থেকে ১০ জনের মধ্যে থাকা এলাকা ব্লু জোনে এবং আক্রান্তের সংখ্যা শূন্য থাকা এলাকাকে গ্রিন জোনে রাখা হয়েছে।

এদিকে, নগরীতে করোনা আক্রান্ত সংখ্যার সাথে বাড়ছে ভবন ও কাঁচা ঘর লকডাউন সংখ্যা। এখন পর্যন্ত লকডাউনের কবলে পড়ছে ৬টি ঝুকিপূর্ণ জোনের ৭৩২ টি এলাকার ৯৪০ টি ভবন ও ১ হাজারেরও বেশি কাঁচা ঘর।

নগর পুলিশের বিশেষ শাখা (সিটিএসবি)সূত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত নগরীতে করোনো আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৩০০ জন। এরমধ্যে সাধারণ নাগরিক, ডাক্তার, আইনজীবী ও সরকারি চাকরিজীবীর পাশাপাশি ১৬৮ জন আইন শৃংখলা বাহীনির সদস্যও রয়েছেন। নগরীতে এ পর্যন্ত ৭৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তার মধ্যে ২ হচ্ছেন সিএমপির সদস্য।

গত ৩ এপ্রিল সর্ব প্রথম নগরীতে করোনা রোগী পাওয়া যায় গত এপ্রিলের ৩ তারিখ। প্রথম সে রোগীর বাসা ছিল চকবাজার থানার দামপাড়া মসজিদ গলির একটি তিন তলা ভবনে। সেখান থেকে শুরু হয়ে পাহাড়তলী, দামপাড়া পুলিশ লাইন, কাট্টলি, চান্দগাঁও ও চকবাজার হয়ে এখন ছড়িয়ে পড়েছে সব থানা এলাকায়। মোট ৭৩২ টি এলাকায় এখন করোনা ভাইরাসের প্রকোপ রয়েছে। ধীরে ধীরে সেটির পরিধিও বাড়ছে।

সিটিএসবি জানায়, নগরীর ১৬ থানার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত সংখ্যা কোতোয়ালি থানা এলাকায়। ৩২৪ জন নিয়ে বর্তমানে এ থানা এলাকাটি-ই রয়েছে শীর্ষে। এরপরে ২১৫ জন নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পাঁচলাইশ।

বাকী থানাগুলোতে করোনা রোগী রয়েছে যথাক্রমে বাকলিয়ায় ৯৯ জন, চকবাজার ১১১ জন, সদরঘাট ৮৬ জন, চান্দগাঁও ১০৬ জন, বায়েজিদ ৯৯ জন, খুলশী ১৮৩ জন, ডবলমুরিং ১৪১ জন, পাহাড়তলী ১১৪ জন, হালিশহর ১৬৭ জন, আকবরশাহ ১১১ জন, ইপিজেড ১১২ জন, বন্দর ১২৩ জন ও পতেঙ্গা ১৬৮ জন। এছাড়া ঠিকানা অসম্পূর্ণ এমন করোনা রোগী রয়েছে ৮৬ জন।