মার্চেই ঢাকায় আসছেন ৫ দেশের রাষ্ট্রপ্রধান

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মার্চে ঢাকায় আসছেন দক্ষিণ এশিয়ার তিন রাষ্ট্রপ্রধান। 

তাঁরা হলেন- ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ ও নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারী। মার্চের ১৭ থেকে ২৬ তারিখের মধ্যে তাঁরা ঢাকায় সফরে আসছেন। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া) রাষ্ট্রদূত মাশফি বিনতে শামস এ তথ্য জানিয়েছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগামী ২৬ ও ২৭ মার্চ ঢাকা সফর করবেন এবং স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। আর মালদ্বীপ ও নেপালের রাষ্ট্রপতি ২৬ মার্চের আগেই ঢাকা সফরের কথা রয়েছে। 

দক্ষিণ এশিয়ার এ তিন রাষ্ট্রপ্রধানদের ঢাকা সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পৃথক দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হবে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে।

এদিকে মার্চেই তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান ও হাঙ্গেরির রাষ্ট্রপ্রধান হানোস আদেরের ঢাকা সফরের কথা রয়েছে। তবে করোনা মহামারি সংক্রান্ত কারণে তাঁদের সফর নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা রয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের সূচি চূড়ান্ত করতে আগামী ৪ মার্চ ঝটিকা সফরে ঢাকায় আসছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর। ওইদিনই বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সঙ্গে জয়শঙ্করের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। 

শেখ হাসিনার সঙ্গে মোদীর বৈঠকে দু’দেশের জ্বালানি, যোগাযোগসহ বেশ কয়েকটি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হতে পারে বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে। এছাড়াও আরও কোন কোন খাতে দু’দেশের অগ্রগতি হবে, সেগুলোও বৈঠক চূড়ান্ত করা হতে পারে।

ঢাকার কূটনীতিকেরা চাচ্ছেন, মোদীর ঢাকা সফরে অন্তত ৬টি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক বা চুক্তি করতে; যার মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং কুশিয়ারা নদীতে পানি উন্নয়ন সর্বাধিক গুরুত্ব পাবে। এছাড়াও বাণিজ্য, বাংলাদেশ-ভারত-নেপালের মধ্যে স্থলযান চলাচল, জ্বালানি, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, সমুদ্র-সম্পদ প্রাধান্য পাবে।

অপরদিকে মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতির ঢাকা সফরে মৎস খাতের সহযোগিতা নিয়ে দু’দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে।