ঈদে ছুটির দাবিতে মিরপুরে সড়কে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঈদুল ফিতরে ছুটির দাবিতে রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বরে রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে পোশাক শ্রমিকরা। ঈদে ১০ দিনের ছুটির দাবিতে বিক্ষোভ করছেন তারা।

 

শনিবার মিরপুরের ভাষানটেক এলাকা থেকে এসে মিরপুর-১০ গোলচত্বরে জড়ো হয়ে অবস্থান ও বিক্ষোভ করছেন বিভিন্ন কারখানায় কর্মরত শ্রমিকরা।

সড়ক বন্ধ করে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভের কারণে মিরপুর ১০ নম্বর মোড় এলাকায় দিয়ে চলাচল করতে যাওয়া সব ধরনের যানবাহন আটকা পড়েছে। কোনো যান চলাচল করছে না। ফলে আশপাশের এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

 

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রোধে কঠোর বিধিনিষেধের দ্বিতীয় ধাপে ১৪ এপ্রিল থেকে দেশে জরুরি কাজ ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়, যা ‘সর্বাত্মক’লকডাউন নামে পরিচিতি পায়।

এই বিধিনিষেধের মধ্যে জরুরি সেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া সরকারি-বেসরকারি অফিস ও গণপরিবহন আগের মতই বন্ধ আছে। তবে উৎপাদনমুখী শিল্প কারখানা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ চলছে।

লকডাউনে শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশনা থাকলেও ‘জীবন-জীবিকার কথা বিবেচনা করে’ গত ২৫ এপ্রিল থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান ও শপিংমল খোলার অনুমতি দেওয়া হয়।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়। মহামারীর মধ্যে ঈদুল ফিতর ঘিরে কোনো প্রতিষ্ঠান কর্মীদের সরকারি তিন দিনের অতিরিক্ত ছুটি দিতে পারবে না বলেও ঘোষণা দেয় সরকার। গার্মেন্টস ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও কোনো বন্ধ দিতে পারবে না। তিন দিনের বাইরে আর কোনো বন্ধ বা অতিরিক্ত ছুটি দিতে পারবে না। সরকারের এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ঈদে ১০ দিনের ছুটির দাবিতে আজ ঢাকার সড়কে নামেন বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিকরা।

রাস্তা বন্ধ করে আন্দোলনরত শ্রমিকদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করতে দেখা গেছে পুলিশ সদস্যদের। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শত শত শ্রমিক গোলচত্বর এলাকায় দাবি আদায়ে অবস্থান করছেন।

শ্রমিকদের রাস্তা বন্ধ করে আন্দোলনের বিষয়ে জানতে চাইলে মিরপুর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, রাজধানীর ভাষানটেক ও কাফরুল এলাকার কয়েকটি গার্মেন্টস শ্রমিকরা জড়ো হয়ে আজ সকাল থেকে মিরপুর ১০ নম্বর মোড়ে অবস্থান ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছে। তাদের দাবি, ঈদে ১০ দিনের ছুটি দিতে হবে। রাস্তায় আমরা রয়েছি। শ্রমিকদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়ার জন্য আমরা অনুরোধ করছি।