দ্বিতীয়বারের মতো ইউরোপসেরার মুকুট চেলসির

img

ক্রীড়া ডেস্ক:

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটিকে ১-০ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো শিরোপা জিতলো চেলসি। ফাইনালে দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন জার্মান মিডফিল্ডার কাই হাভার্টজ।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে ১০০ শতাংশ জয়ের সাফল্য নিয়েই এস্তাদিও দো দ্রাগাও স্টেডিয়ামে এদিন নেমেছিলেন পেপ গুয়ার্দিওলা। বার্সেলোনাকে দু’বার ইউরোপ সেরা করা স্প্যানিশ কোচের মগজাস্ত্রেই প্রথমবার ইউরোপ সেরা হওয়ার স্বপ্ন দেখছিল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। বিপক্ষ ডাগ-আউটে থমাস টাচেল আবার গত মৌসুমে পিএসজিকে ফাইনালে তুলেও খেতাব জিততে ব্যর্থ হয়েছিলেন। রেকর্ড গড়ে এবছর চেলসিকে ফাইনালে তুলে অধরা মাধুরি জয়ের স্বপ্নে বুঁদ ছিলেন তিনিও। উত্তেজক সেই লড়াইয়ে টাচেলের কাছে বশ্যতা স্বীকার করলেন গুয়ার্দিওলা।

৪২ মিনিটে মাঝ মাঠ থেকে মেসন মাউন্টের থ্রু বল বোকা বানায় ম্যান সিটি ডিফেন্সকে। ওয়ান টু ওয়ানে কাই হাভার্টজ গোল করতে ভুল করেননি। চেলসির হয়ে এই মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এই প্রথম গোল ২১ বছর বয়সী এই জার্মানের। লিড নিয়ে বিরতিতে যায় চেলসি।

দ্বিতীয়ার্ধে কৌশলে পরিবর্তন আনেন গার্দিওলা। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন কেভিন ডি ব্রুইনা। তার জায়গায় মাঠে নামেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। এরপর আরো দুই পরিবর্তন আনেন ম্যান সিটি কোচ। দুই অভিজ্ঞ ফার্নানদিনহো আর সার্জিও আগুয়েরোকে মাঠে নামালে, বাড়তে থাকে সিটির আক্রমণের ধার।

পোর্তোর মেগা ফাইনালে ম্যান সিটিকে হারিয়ে কিস্তিমাত টাচেলের। আর জার্মান কোচের হাত ধরে ন’বছর পর আবারও ইউরোপ সেরা চেলসি। প্রথমার্ধে কাই হাভার্টজের করা একমাত্র গোল মেগা ফাইনালে পার্থক্য গড়ে দিল দু’দলের মধ্যে। অথচ মৌসুমের শুরুতে বায়ার্ন লেভারকুসেনকে প্রায় ৭৫ মিলিয়ন পাউন্ড ট্রান্সফার-ফি দিয়ে মাঝপথে দল ছাড়া ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড হাভার্টজকে দলে নেওয়ায় ভ্রু কুঁচকেছিলেন অনেকেই। জার্মানির ২১ বছরের ছেলেটা আজ যখন পার্থক্য গড়ে দিল তখন নিশ্চয় সবার অলক্ষ্যে মুচকি হাসছিলেন ল্যাম্পার্ড।