নিখিলের সঙ্গে লিভ-ইন করেছি, বিয়ে নয়: নুসরাত

img

বিনোদন ডেস্ক:

নিখিল জৈনের সঙ্গে বিয়ে, মানসিক দ্বন্দ্ব ও দূরত্বের বিষয়ে এবার মুখ খুললেন টলিউডের আলোচিত নায়িকা ও সাংসদ নুসরাত জাহান। তুরস্কে বিয়ে হয়েছিল তাদের। সেই প্রসঙ্গ টেনে অভিনেত্রী জানালেন, তুরস্কের বিবাহ আইন অনুসারে এই অনুষ্ঠান অবৈধ। কারণ, হিন্দু-মুসলিম বিবাহের ক্ষেত্রে বিশেষ বিবাহ আইন অনুসারে বিয়ে করা উচিত, যা এ ক্ষেত্রে মানা হয়নি। ফলত, এটা বিয়েই নয়। 

বুধবার একটি বিবৃতি জারি করে নিজের যুক্তি প্রকাশ্যে আনলেন অভিনেত্রী ও সাংসদ নুসরত জাহান। তিনি বলেন, ‘নিখিলের সঙ্গে আমি সহবাস করেছি। বিয়ে নয়। ফলে বিবাহ-বিচ্ছেদের প্রশ্নই ওঠে না।’

মা হচ্ছেন নুসরাত। অনাগত সন্তানের পিতৃপরিচয় কী? গত ৫ দিন ধরে অভিনেত্রী-সাংসদ নুসরাত জাহানকে নিয়ে বিতর্ক চলছে। শুধু তাই নয়, নিখিলের সঙ্গে তার বিবাহ বিচ্ছেদ হচ্ছে না কেন, এই নিয়েও প্রশ্ন ওঠেছে চার দিক থেকে। 

এমনকি লেখিকা তসলিমা নাসরিনও নুসরাতের নীরবতা নিয়ে কথা বলেছিলেন নেটমাধ্যমে। তার ভাষ্য, ‘এই যদি পরিস্থিতি হয়, তবে নিখিল আর নুসরাতের ডিভোর্স হয়ে যাওয়াই কি ভালো নয়? অচল কোনও সম্পর্ক বাদুড়ের মতো ঝুলিয়ে রাখার কোনও মানে হয় না। এতে দু’পক্ষেরই অস্বস্তি।’

দু’দিন আগে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে নিখিল জানিয়েছেন, নুসরাতের বিরুদ্ধে দেওয়ানি মামলা দায়ের করেছেন তিনি। নিখিলের কথায়, ‘যে দিন জানলাম, নুসরাত আমার সঙ্গে থাকতে চায় না, অন্য কারও সঙ্গে থাকতে চায়- সে দিনই দেওয়ানি মামলা দায়ের করেছি। নুসরাতের মা হওয়ার পরে এই সিদ্ধান্ত নিইনি আমি।’ 

এমনকি আগামী জুলাই মাসে যে আদালতে এই মামলার শুনানি, নিখিল সে কথাও স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন। বিবৃতি জারি করেই বুধবার নিজের ইনস্টাগ্রাম পোস্টে নুসরাত লেখেন, ‘যে মহিলা সব শুনেও নীরব থাকেন, এ রকম পরিচয়ে পরিচিত হব না আমি।’