ভারতীয় দুই কাশির সিরাপ সেবনে সতর্ক থাকতে বললো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

img

আন্তর্জাতিক প্রতিবেদক: 

ভারতের নয়ডা ভিত্তিক কোম্পানি মেরিয়ন বায়োটেকের তৈরি শিশুদের দুটি কাশির সিরাপ সেবনে সতর্ক থাকতে বললো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

বুধবার একটি মেডিকেল পণ্য সতর্কতায় ডব্লিউএইচও বলেছে, মেরিয়ন বায়োটেকের তৈরি ‘নিম্নমান চিকিৎসা পণ্যগুলি’ এমন পণ্য যা গুণমানের সঠিক মানদণ্ড পূরণে ব্যর্থ এবং তাই তারা সেবনযোগ্য তালিকার বাইরে। সতর্কতাটি উজবেকিস্তানে চিহ্নিত দুটি নিম্নমানের (দূষিত) পণ্যকে বোঝায়। এ নিয়ে ২২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে ডব্লিউএইচওকে রিপোর্ট করা হয়েছে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘দুটি পণ্য হল অ্যাম্ব্রনল সিরাপ এবং ডক-১ ম্যাক্স সিরাপ। উভয় পণ্যের উল্লিখিত প্রস্তুতকারক হল মেরিয়ন বায়োটেক প্রাইভেট লিমিটেড (উত্তর প্রদেশ, ভারত)। আজ পর্যন্ত, বিবৃত প্রস্তুতকারক ডব্লিউএইচওকে নিরাপত্তার বিষয়ে এবং এই পণ্যগুলির গুণমান সম্পর্কে গ্যারান্টি প্রদান করেনি।’

উজবেকিস্তান থেকে কাশির সিরাপ খাওয়ার পরে শিশুদের মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হওয়ায় নয়ডা-ভিত্তিক ফার্মা মেরিয়ন বায়োটেক নজরদারির আওতায় চলে এসেছে।

ডব্লিউএইচওর মতে, উজবেকিস্তান প্রজাতন্ত্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জাতীয় মান নিয়ন্ত্রণ পরীক্ষাগার দ্বারা পরিচালিত কাশির সিরাপগুলির নমুনাগুলির পরীক্ষাগার বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে উভয় পণ্যেই অগ্রহণযোগ্য পরিমাণে ডাইথাইলিন গ্লাইকোল এবং/অথবা ইথিলিন গ্লাইকোল দূষক হিসেবে রয়েছে।

সতর্কতায় ডব্লিউএইচও বলেছে, ‘এই উভয় পণ্যেরই এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশে বিপণনের অনুমোদন থাকতে পারে। এগুলি অনানুষ্ঠানিক বাজারের মাধ্যমে, অন্যান্য দেশ বা অঞ্চলে বিতরণ করা হতে পারে।’

জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থা যোগ করেছে যে ‘এই সতর্কতায় উল্লেখ করা নিম্নমানের পণ্যগুলি অনিরাপদ এবং তাদের ব্যবহার, বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে, গুরুতর আঘাত বা মৃত্যু হতে পারে।’

২২শে ডিসেম্বর উজবেকিস্তান অভিযোগ করেছিল, ম্যারিওন বায়োটেক কোম্পানির তৈরি ওষুধ খাওয়ার পরে ১৮ শিশু মারা গেছে। মঙ্গলবার, উত্তরপ্রদেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও ওষুধ প্রশাসন বিভাগ উজবেকিস্তানে ১৮ শিশুর মৃত্যুর সঙ্গে যুক্ত মেরিয়ন বায়োটেক কোম্পানির উৎপাদন লাইসেন্স স্থগিত করেছে।

গৌতম বুদ্ধ নগর ড্রাগ ইন্সপেক্টর বৈভব বব্বর বলেছেন, ‘পর্যাপ্ত নথি সরবরাহ না করার পরে আমরা মেরিয়ন বায়োটেক কোম্পানির উত্পাদন লাইসেন্স স্থগিত করেছি, পরিদর্শনের সময় জিজ্ঞাসা করা নথিগুলির উপর নির্ভর করে রাষ্ট্রীয় লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ দ্বারা কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল যা তারা সরবরাহ করেনি।’

তিনি আরও বলেন, নমুনার ফলাফল এখনও বাকি আছে।

গত মাসে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মান্ডাভিয়া বলেছিলেন, কাশির সিরাপ ডক-১ ম্যাক্সে দূষণের রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে নয়ডা ভিত্তিক ফার্মা কোম্পানির সমস্ত উত্পাদন কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।