ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতির বহিষ্কার দাবি সাবেক ছাত্রনেতাদের

img

শিক্ষা প্রতিবেদক:

ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি রুহুল আমিনকে মারধরের অভিযোগ ওঠায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসকে বহিষ্কার করার দাবি করেছেন সংগঠনের সাবেক নেতারা।

রবিবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করে এ দাবি করেন তারা।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটে ওঠা নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি রুহুল আমিনকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে৷ এ ঘটনা তদন্তের জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কমিটির সদস্যদের আগামী দুই কার্যদিবসের মধ্যে সুপারিশসহ তদন্ত রিপোর্ট সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শওকতুজ্জামান সৈকত, সাবেক সহ সভাপতি আরেফিন সিদ্দিকী সুজন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তানজিল ভূঁইয়া তানবীর, জিয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু সালমান প্রধান শাওন।

সাবেক ছাত্রনেতারা বলেন, সাবেক ছাত্রনেতা হিসাবে এ ঘটনা আমোদের জন্য অস্মানজনক ও দুঃখজনক। এটা ধৃষ্টতা, এ ধরনের ঘটনা আগে ঘটে নাই।

রুহুল আমিন দলের দুঃসময়ের কর্মী। তাঁর ওপরে হামলার জন্য সঞ্জিতের বিচার চাই। তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হোক।

জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঘটনাটি দুঃখজনক, অন্যায় হয়েছে। ঘটনা তদন্ত করার জন্য ছাত্রলীগ একটা কমিটি করেছে। নেত্রী দেশে এলে বিষয়টি নিয়ে কথা বলবো। ছাত্রলীগের তদন্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া নেয়া হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাছানুজ্জান লিটন, মিজানুর রহমান মিজান, সোহেল রানা মিঠু, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, মামুন অর রশিদ, হেমায়েত উদ্দিন, আসাদুজ্জামান নাদিম, শাহাদত হোসেন রাজন, শেখ তুহিন, শাহ ইমরান সোহাগসহ শতাধিক সাবেক নেতারা।

ছাত্রলীগের সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক সোহেল রানা মিঠু বলেন, আমরা দলের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি বলেছেন, তিনি আগে থেকেই অবগত রয়েছেন। নেত্রী দেশে এলে কথা বলে ব্যবস্থা নেবেন।

রুহুল আমিন অভিযোগ করে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, সঞ্জিত আমাকে মারতে মারতে আট তলা থেকে নিচে নিয়ে আসে। সে আমাকে শিবির বলে গালাগালও করেছে।

তবে সঞ্জিত এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলছেন, তিনি রুহুল আমিনকে মারেননি। তবে ‘পোলাপানের সাথে’ তার সমস্যা হয়েছে বলে শুনেছেন। তখন তিনি গিয়ে ঝামেলা ‘মিটিয়ে দিয়ে’ এসেছেন।

 


এই বিভাগের আরও খবর