গণমাধ্যমকে জাতীয় স্বার্থ প্রাধান্য দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

গণমাধ্যমকে জাতীয় স্বার্থ প্রাধান্য দেয়ার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘জাতীয় স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে এবং সাংবাদিকতার নৈতিকতা মেনে চলে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করুন।’

১৮ ফেব্রুয়ারি সোমবার  রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ‘প্রেস কাউন্সিল দিবস’ ও প্রেস কাউন্সিল সম্মানান প্রদান অনুষ্ঠানে প্রদত্ত ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।

গণমাধ্যম, গণতন্ত্র এবং উন্নয়নের মধ্যে আন্তঃসম্পর্কের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এই তিনটি উপাদানের কোনো একটি ছাড়া অন্যগুলো অকার্যকর এবং গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে গণমাধ্যম সাহায্য করতে পারে।’

‘ওয়াচডগ’ হিসেবে প্রেস কাউন্সিল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘মিথ্যা, উস্কানিমূলক, হলুদ সাংবাদিকতা কখনোই গণতন্ত্রের বন্ধু হতে পারে না।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘দেশের বড় বড় ব্যবসায়ীরা এখন বিভিন্ন গণমাধ্যমের মালিক এবং গণমাধ্যমের বিকাশে তারা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।’

তিনি বলেন, ‘কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে মনে রাখতে হবে সংকীর্ণ ব্যক্তিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক স্বার্থে গণমাধ্যম ব্যবহৃত হতে পারে না।’

তিনি আরও বলেন, বাঙ্গালি সংস্কৃতি ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রেখে বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ সংবাদ প্রচারের লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলকে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর এবং ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উনয়ন্ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে গণমাধ্যমকর্মীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে বলে যোগ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। 

প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রিধারী ও তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) জ্ঞানসম্পন্ন তরুণ-তরুণীদের সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত হওয়াকে স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘মাতৃভূমির স্বার্থে তাদের উচিত মেধা ও দক্ষতার পাশাপাশি সততা ও নিরপেক্ষতাকে কাজে লাগানো।’

তিনি বলেন, ‘তারা (তরুণ সাংবাদিক) জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রসাবাদমুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের মডেল হবেন।’

প্রেস কাউন্সিল পদকপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘এই পুরস্কার দেশে সাহসী, সৎ ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতাকে উৎসাহিত করবে।’

সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখার জন্য ৫ জন ব্যক্তি ও ২টি প্রতিষ্ঠানসহ মোট ৭টি সম্মাননা দেয়া হয়। পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- দৈনিক সমকালের প্রয়াত সম্পাদক গোলাম সারওয়ার (মরনোত্তর আজীবন সম্মাননা), উন্নয়ন সাংবাদিকতায় জসিমউদ্দিন হারুন (ফাইনান্সিয়াল এক্সপ্রেস), গ্রামীণ সাংবাদিকতায় মুরশিদ আলম (মুক্তবার্তা, বগুড়া), ফটোগ্রাফিতে সনি রামানি (ডেইলি নিউ এইজ) এবং নারী সাংবাদিকতায় আয়েশা সিদ্দিকা আকাশি (দৈনিক সুবর্নগ্রাম, মাদারিপুর)।

প্রতিষ্ঠান ক্যাটাগরিতে সম্মাননা পেয়েছে দৈনিক ইত্তেফাক ও দৈনিক আজাদী।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজউদ্দিন আহমেদ, তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু, তথ্য সচিব আবদুল মালেক, প্রেস কাউন্সিলের সদস্য মনজুরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ।