জন্ডিসের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে, পানি পানে সতর্কতা

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশে হেপাটাইটিস ই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জন্ডিসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে এ রোগ প্রতিরোধে রাজধানীসহ দেশবাসীকে পানি পানে সর্বোচ্চ সতর্ক হওয়ার আহবান জানানো হয়েছে।

রাজধানীর বাংলামোটরে একটি হোটেলে শনিবার হেপাটোলজি সোসাইটি আয়োজিত এক বৈজ্ঞানিক সেমিনারে এ কথা বলা হয়। বৈজ্ঞানিক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক মবিন খান। এতে প্রবন্ধ পাঠ করেন বারডেম হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ও সোসাইটির বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক ডা. গোলাম আজম ও বিএসএমএম ইউর লিভার বিশেষজ্ঞ ডা. সাইফুল ইসলাম এলিন ও ডা. মো. শাহিনুল আলম।

অধ্যাপক মবিন খানের নেতৃত্বে পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে প্রতি বছর মে মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাসে হেপাটাইটিস ই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। যা বাংলাদেশে জন্ডিস হিসেবে পরিচিত। এখানে উল্লেখ্য, গত বছর এ সময়ই চট্টগ্রাম মহানগরীতে হেপাটাইটিস ই ভাইরাসের ব্যাপক প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় এবং কয়েকজনের প্রাণহানিও ঘটেছে।

বছরের এ সময় বৃষ্টির কারণে শহর এলাকায় পানি সরবরাহ দূষিত হওয়া শঙ্কা বেড়ে যায়। আবার গরমের কারণে মানুষের যত্রতত্র অনিরাপদ পানি, শরবত গ্রহণের প্রবণতা বেড়ে যায়। আর এ বছর গরমের মাঝে রমজানে এ শঙ্কা অনেকাংশে বেড়ে গেছে। আর জন্ডিসের প্রকোপ গ্রামের চেয়ে শহরাঞ্চলে বেশি। বাংলাদেশে জন্ডিসের মূল কারণ হেপাটাইটিস ই ভাইরাস । হেপাটাইটিস ই ভাইরাস পানিবাহিত জীবাণু। বৃষ্টির সময়ে শহরে সুয়ারেজ লাইন থেকে পানির লাইন দূষিত হয়।

২০০৪ সালে বন্যার পর ঢাকা শহরে ব্যাপক আকারে একিউট ই ভাইরাল হেপাটাইটিস ছড়িয়ে পড়ে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহস্রাধিক ছাত্র আক্রান্ত হয়। এমনকি এক ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশে একিউট ভাইরাল হেপাটাইটিসের (জন্ডিসের) কারণ শতকরা ৫০-৭০ ভাগ ক্ষেত্রে হেপাটাইটিস ই ভাইরাস। আক্রান্তদের তিন চতুর্থাংশই কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী (২০-৫৫ বছর)। একবার আক্রান্ত হলে ১৫ থেকে ৪৫ দিন বিশ্রাম নিতে হয়। সাধারণভাবে মৃত্যুর হার শতকরা ১ ভাগের কম। কিন্তু গর্ভবতী মায়েরা আক্রান্ত হলে মৃত্যুর হার ৮০ শতাংশ।

হেপাটোলজি সোসাইটি চলতি মৌসুমে আতঙ্কিত না হয়ে হেপাটাইটিস ই ভাইরাস বা জন্ডিস প্রতিরোধে নগরবাসীকে ৬টি পরামর্শ দিয়েছে।

১. বিশুদ্ধ পানি পান ও ব্যবহার নিশ্চিত করা। পানি ৩০ মিনিট ফুটিয়ে অথবা বিশুদ্ধ করে পান করতে হবে।

২. হোটেলে, ঘরে বাসি খাবার বর্জন।

৩. রাস্তার খোলা জায়গার শরবত, খাবার বর্জন।

৪. খাওয়ার আগে ও মল ত্যাগের পরে সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধোয়া।

৫. বাসার পানির ট্যাংক ৪ মাস পর পর ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত পানি দিয়ে পরিষ্কার করা।

৬. চোখ হলুদ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া।