‘মুজিব বর্ষে’ বাসস্থান পাবেন ১৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধা

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

২০২০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ‘মুজিব বর্ষ’ উপলক্ষে দেশের ১৫ হাজার মুক্তিযোদ্ধার জন্য আবাসন ব্যবস্থা করা হবে। ভূমিহীন ও অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধারা এ সুবিধা পাবেন।

সোমবার সকালে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে এ কথা জানান মুক্তিযুক্ত বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক।

এসময় মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের কৃতি সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসনের জন্য ‘ভূমিহীন ও অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাসস্থান নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের মাধ্যমে প্রথম পর্যায়ে সারাদেশে অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দুই হাজার ৯৬২টি বাসস্থান নির্মাণ ও বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও প্রায় ১৫ হাজার বাসস্থান নির্মাণের জন্য প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। বাসস্থানের ডিজাইন সম্পন্ন করা হয়েছে এবং তা চুড়ান্ত অনুমোদন পর্যায়ে রয়েছে।’

মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী জানান, ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিব বর্ষ উদযাপনের অংশ হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপহার হিসেবে এসব বাড়ি দেয়া হবে। তিনি বলেন, ‘দূরারোগ্য রোগে আক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধাদের তাৎক্ষণিক বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেয়ার লক্ষ্যে সব উপজেলা সরকারি হাসপাতাল, জেলা সদর হাসপাতাল, সরকারি মেডিকেল কলেজ ও বিশেষায়িত হাসপাতালের অনুকূলে অর্থ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে।’

এক প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের পক্ষ থেকে যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মার্টকার্ড বা পরিচয়পত্র দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মার্টকার্ড বা পরিচয়পত্র দেয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থানগুলো সংস্কার ও সংরক্ষণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের মাধ্যমে দুটি প্রকল্প বর্তমানে চলমান রয়েছে।’

মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অথবা যাচাই-বাছাই ছাড়াই মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে যাচাই-বাছাই কার্যক্রম চলমান আছে, যা অচিরেই সম্পন্ন হবে।’