আমি চাই সকলের সাথে মিশতে, জানতে এবং কাজ করতে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় গিয়ে আওয়ামী লীগ ঘরে ফেরার যে কর্মসূচি নিয়েছিল তা আবার হাতে নেওয়ার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রবিবার নিজ কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঘরে ফেরা কর্মসূচি নিয়েছিলাম। এই প্রোগ্রামটা বোধহয় আবার হাতে নিতে হবে। পাশাপাশি এতিমখানা, বয়োবৃদ্ধদের থাকার ব্যবস্থার জন্য ‘শান্তিনিবাস’ ও বিত্তশালী বয়োবৃদ্ধদের জন্য ‘অবসর’ কর্মসূচিও আবার চালু করা দরকার।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা ঘরে ফিরে যেতে চায় তাদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ হিসেবে আমরা বস্তিবাসীর উপর সার্ভে করেছিলাম। এই কাজগুলো আবার করতে হবে।’

অনুষ্ঠানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রকল্প ঠিক করে তা দ্রুত বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়গুলোকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। নির্দেশ দেন নিষ্ক্রিয় প্রকল্পগুলো ফের চালু করার।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি মনে করি এই দপ্তর (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়) থেকেই যেহেতু একটা ভালো সেটআপ আছে। সেখান থেকে কিন্তু একটু নজরদারিও বাড়াতে হবে প্রত্যেকটা মন্ত্রণালয়ে, যে অগ্রাধিকার ঠিক করে নিয়ে কোন কাজগুলি দ্রুত আমরা করতে পারি।’

দারিদ্র্যের হার আরও কমানোর জন্য কাজ করতে নির্দেশনা দিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমি বলব প্রত্যেকটা এলাকায় আমাদের খোঁজ নেওয়া দরকার। যেটা আমি ডিসি কনফারেন্সেও বলে দিয়েছি। কোনো এলাকায় কেউ ভিক্ষা করবে না, কোনো এলাকায় মানুষ গৃহহারা থাকবে না। যেখানেই গৃহহারা মানুষ, তার ঘর তৈরি করে দিতে হবে’।

গত অর্থবছরে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ। এবছর প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮ দশমিক ২০ শতাংশ। শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সবসময় একটু কমই ধরি। কিন্তু অর্জনটা বেশি করতে চাই। স্বাভাবিকভাবেই আমাদের লক্ষ্য আছে যে, আমরা ডাবল ডিজিটে যাব। প্রবৃদ্ধি ৮ পর্যন্ত আমরা উঠে এসেছি। এটা মনে রাখতে হবে আটের পরে ওপরে ওঠানো কিন্তু একটু বেশ কঠিন এবং এটা কিন্তু একটু ধীরগতিসম্পন্ন হয়। এটাই অর্থনীতির নিয়ম। ধীরগতিসম্পন্ন হবে বলেই আমাদের একটু বেশি নজর দিতে হবে। বেশি শ্রম দিতে হবে। বেশি কাজ করতে হবে।

‘এখন কিন্তু অত দ্রুত আমরা উঠতে পারব না। অর্থনীতির নিয়ম অনুযায়ীই এটা হয়ে থাকে। কিন্তু এর থেকে যেন আমরা পিছিয়ে না যাই, সেদিকে আমাদের দৃষ্টি দিতে হবে।’

দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিজের কঠোর অবস্থানের কথা আবারও স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে ঘুষ নেবে শুধু সে না, যে দেবে সেও অপরাধী। এই জিনিসটা মাথায় রাখা দরকার এবং এভাবে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এভাবে যদি আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি, এটা নিয়ন্ত্রণ করি, তাহলে অনেক কাজ আমরা দ্রুত করতে পারব। এক্ষেত্রে আমাদের দুর্নীতি দমন কমিশন যথেষ্ট সক্রিয় আছে। এর সঙ্গে কে কত কর দিল আর কে কত খরচ করল তারও একটা হিসাব নেওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার প্রেক্ষাপটে মশাবাহিত রোগটি প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় সবই করা হচ্ছে মন্তব্য করে এই রোগ প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। বলেন, ‘ডেঙ্গু একটা বিরাট সমস্যা। এবার শুধু আমাদের দেশে নয়, আমাদের আশপাশে অনেক দেশেই কিন্তু এটা ডেঙ্গু দেখা দিয়েছে। কোনো কোনো দেশে তো মহামারি আকারে দেখা গিয়েছে। ইমার্জেন্সি ডিক্লিয়ার করতে বাধ্য হয়েছে।’

ডেঙ্গুর বিষয়ে দেশবাসীকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তার যে নির্দেশগুলো দিয়েছে..প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা বা পানীয় জাতীয় খাবার যত নেওয়া যায় সেগুলো নেওয়া। একটু সচেতন থাকা, মশারি ব্যবহার করা। এছাড়া এটা মোকাবেলার জন্য যা যা করা দরকার সেগুলো করা হচ্ছে। নিজেদেরকে সচেতন থাকতে হবে। নিজের ঘর বাড়ি পরিষ্কার রাখা, কোথাও ডেঙ্গুর মশাটা যেন জন্ম না নিতে পারে সে সচেতনতা সৃষ্টি করা, নিজে সচেতন থাকা এবং নিজেকে সুরক্ষিত রাখা সেটা হচ্ছে সব থেকে প্রয়োজন।’

দেশের মানুষকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে আরও সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নিজের কাজটি নিজেই করার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন। বলেন,  ‘পাশ্চাত্য বিশ্বের অনেক কিছুই আমরা অনুকরণ করতে চাই। কিন্তু তারা যেভাবে নিজেদের কাজটা নিজেরা করে তা আমরা অনুকরণ করি না।’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি ইঙ্গিত করে সারকারপ্রধান বলেন, যারা একদা বাংলাদেশের স্বাধীনতার শুধু বিরোধিতাই করে নাই তারা বলেছিল বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে একটা বটমলেস বাস্কেট হবে। সেই দেশটার থেকেও যেন আমাদের দারিদ্রের হার কমাতে হবে।

‘তাদের চেয়ে অন্তত এক শতাংশ হলেও দারিদ্র কমাতে হবে, সেটাই আমাদের লক্ষ্য। তারা উন্নত দেশ হতে পারে কিন্তু আমরা যে পারি সেটা আমাদের প্রমাণ করতে হবে’ যোগ করেন তিনি।

দেশের কয়েকটি অঞ্চলে বন্যা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আষাঢ়, শ্রাবণ ও ভাদ্র মাসে বাংলাদেশে বৃষ্টি ও বন্যা হয় এবং এটা স্বাভাবিক। তবে, এতে জানমালের ক্ষয়-ক্ষতি যেন কম হয় সেদিকে সবাইকে লক্ষ্য রাখতে হবে এবং বন্যা মোকাবেলায় আমরা যে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়েছি সেটাও বাস্তবায়ন করতে হবে।

বাংলাদেশ পলিবাহিত ব-দ্বীপ হওয়ায় এর মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি এবং ভূগর্ভন্থ পানির স্তর রক্ষায় বন্যার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘কিন্তু এর ক্ষতিটা আমাদের কমিয়ে আনতে হবে। যেকোনো পরিকল্পনায় মাথায় রাখতে হবে বন্যা বন্ধ করে নয় বরং বন্যার সঙ্গে বসবাস করা আমাদের শিখতে হবে।’

দারিদ্র বিমোচন এবং দেশের সার্বিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে উল্লেখ করে যেকোন কাজে তাঁর কাছে যেকোন সময় যে কাউকে আসার অনুমতি দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন,‘আমাকে জনগণ ভোট দিয়ে প্রধানমন্ত্রী করেছে এটা ঠিক, কিন্তু আমি জাতির পিতার কন্যা কাজেই সেই হিসেবে, মনে করি দেশের প্রতি আমার একটা দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। সেখানে প্রটোকলের বাধা আমি কখনও মানি না, মানতেও চাই না।’

শেখ হাসিনা বলেন,‘ আমি চাই সকলের সাথে মিশতে, জানতে এবং কাজ করতে। আমরা সকলে একটা টিম হিসেবে কাজ করবো যাতে দেশের উন্নয়নটা ত্বরান্বিত হয়।’

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, মশিউর রহমান, এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।