প্রয়োজনে তাবিথের পোস্টার লাগিয়ে দেবেন আতিক

img

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়ালের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল বলেছেন, আপনারাই দেখুন পুরো ঢাকায় তাবিথ আউয়ালের পোস্টার। আমি যদি বলতাম, আমাদের নেতারা যদি বলত পোস্টার ছিঁড়তে, তা হলে তাবিথ আউয়ালের একটি পোস্টারও থাকত না। আমাদের ছেঁড়া লাগবে না।

আমি আপনাকে (তাবিথ আউয়াল) বলছি আপনার পোস্টার দিন, আমি লাগিয়ে দেব। আপনার একটি পোস্টারও কেউ ছিঁড়বে না।এসব অভিযোগ না করে শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকেন, ৩০ জানুয়ারি দেখা যাবে, নৌকা বিজয়ী হবেই।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুর আলুব্দী ঈদগাহ ময়দান এলাকায় গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আতিকুল ইসলাম।

সেই সঙ্গে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পেছানোর অনুরোধ করলেন উত্তরের আওয়ামী লীগের মনোনীত এ মেয়রপ্রার্থী।

সমাবেশে আতিকুল বলেন, আমি নির্বাচন কমিশনের প্রতি আমার পক্ষ থেকে, দলের পক্ষ থেকে দাবি জানাচ্ছি, সম্ভব হলে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে দিন। কারো ধর্ম পালনে যেন কোনো বিঘ্ন না ঘটে।

এ সময় তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে সব ধর্মের লোক বাস করে, সবারই উৎসব পালনের অধিকার রয়েছে।

আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উত্তরের নির্বাচনে বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি মনোনীত দুজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন আতিকুল ইসলাম। আর বিএনপি থেকে লড়বেন তাবিথ আউয়াল।

মেয়র হলে কী করবেন তা নিয়ে বেশ কিছু প্রতিশ্রুতিও দেন আতিকুর। বলেন, ঢাকা শহরের অলি-গলিতে বাতি নাই। বয়স্ক ও নারীরা নিরাপদে চলতে পারেন না। আমি যদি নির্বাচিত হই আগামী ৬ মাসের মধ্যে প্রতিটি এলাকায় এলইডি বাতি জ্বলবে।

বস্তিবাসীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী বলেন, পুনর্বাসন না করে কোনো বস্তিবাসীকে উচ্ছেদ করা যাবে না। আমি নির্বাচিত হলে আইনি বিষয়টা দেখব। আর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বস্তিবাসীদের জন্য ফ্ল্যাট করা হবে। সেখানে কেউ সাত দিনের জন্য থাকতে চাইলে সাত দিনের ভাড়া দেবে, আবার কেউ বছরব্যাপী থাকতে চাইলে এক বছরের ভাড়া দেবে এরকম সিস্টেম করতে যাচ্ছি।

আতিকুল ইসলাম বলেন, স্তব্ধ ঢাকাকে সচল ঢাকা দেখতে হলে নৌকার বিজয়ের বিকল্প নেই। আমি গত ৯ মাসে যে কাজ করেছি তার চেয়ে বেশি কাজ করে আপনাদের সচল, সবুজ, মাদকমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত ঢাকা উপহার দেব। এজন্য তিনি নেতাকর্মীদের ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাইতে বলেন। প্রত্যেক ভোটারকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

প্রচারণাকালে আতিকুলের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আকতার, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচিসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।