শহীদ মিনারে তিন ধাপে নিরাপত্তা, আকাশে থাকবে হেলিকপ্টার

img

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

একুশে ফেব্রুয়ারিতে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের আয়োজন ঘিরে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকাকে পাঁচটি সেক্টরে বিভক্ত করে তিন ধাপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নিয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। নিরাপত্তা নিশ্চিতে আকাশে হেলিকপ্টার টহলের ব্যবস্থাও রেখেছে বাহিনীটি।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকাকে পাঁচটি সেক্টরে বিভক্ত করে সার্বিক নিরাপত্তায় র‍্যাব প্রস্তুত থাকবে। পুরো এলাকায় পর্যাপ্ত পরিমাণ ফুট পেট্রোলিং, বাইক ও কার পেট্রোল টিম থাকবে। সাদা পোশাকেও থাকবে র‍্যাব সদস্যরা।

র‍্যাব ডিজি বলেন, অমর একুশের আয়োজনকে নির্বিঘ্ন করতে বহুমুখী নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নেয়া হয়েছে। র‍্যাবের গৃহীত ৩ ধাপের নিরাপত্তার মধ্যে আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুর পর্যন্ত প্রথম ধাপ, দুপুর থেকে আগামীকাল (২১ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার) দুপুর পর্যন্ত দ্বিতীয় ধাপ এবং পরবর্তী সময়ে তৃতীয় ধাপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে। তবে দ্বিতীয় ধাপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

এছাড়া যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্পেশাল ফোর্স রিজার্ভ থাকবে এবং র‍্যাবের হেলিকপ্টার স্ট্যান্ডবাই থাকবে।

তিনি আরো বলেন, এ দিন আজিমপুর কবরস্থানেও অনেকে শহীদদের কবরে শ্রদ্ধা জানাবেন, সেখানেও র‍্যাবের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে। এছাড়া ঢাকার বাইরে বিভাগীয় এবং জেলা পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকার একুশের নিরাপত্তায় র‌্যাবের নজরদারি থাকবে।

এদিকে, কোনো ধরনের হুমকির আশঙ্কায় আছে কি না? এ বিষয়ে জানতে চাইলে বেনজীর আহমেদ বলেন, নিরাপত্তা বর্তমান জীবনে অক্সিজেনের মতো। এখন এটাকে ভিন্নভাবে দেখার সুযোগ নেই। আমেরিকার টুইন টাওয়ার বিপর্যয়ের পর থেকেই বিশ্বব্যাপী নিরাপত্তার বিষয়টি ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে। এটি এখন দৈনন্দিন জীবন-যাত্রারই অংশ। এ ধরনের জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টে যত বেশি নিরাপত্তা থাকবে, মানুষ তত স্বাচ্ছন্দে এবং আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে অংশ নিতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপনের দায়িত্বে রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একুশে ফেব্রুয়ারি উদযাপন কমিটি। কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, ‘সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ। আমরা নিরাপত্তার বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করেছি, বিষয়টি তারা দেখছে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউটসহ কিছু তরুণ শিক্ষক শৃঙ্খলার জন্য কাজ করবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা সবাই সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করব। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা যাতে না হয়, সে বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। এছাড়া শহীদ মিনারের পবিত্রতা রক্ষা আর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ রেখে কেউ যাতে মূল বেদিতে না উঠে পড়েন, সে বিষয়টি সকলের খেয়াল রাখতে হবে।’