দিল্লিতে সংঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৪

img

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের মধ্যে নাগরিকত্ব আইন সংশোধন নিয়ে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে যে সংঘাতের সূত্রপাত হয়েছিল, তা আরও ব্যাপক আকার ধারণ করেছে।

এদিকে, আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, সব মিলিয়ে গত চারদিনে মৃতের সংখ্যা ২৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছেন দুই শতাধিক। তবে আনন্দবাজারের খবরে নিহতের সংখ্যা ২৩ বলা হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, বুধবার পর্যন্ত সহিংসতার ঘটনায় নিহত হয়েছে ২৩। আহতের সংখ্যা ২০০।

মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত দিল্লিতে মৃতের সংখ্যা ছিল ১৩। বুধবার সকালে গুরুতর আহত অবস্থায় আরও চার জনকে গুরু তেগবাহাদুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসকরা তাদেরকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় আরও একজনের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের এমডি সুনীলকুমার গৌতম। বেলা বাড়ার সাথে সাথে আরও দু’জনের মৃত্যু হয়। দুপুরে চাঁদ বাগ থেকে এক গোয়েন্দা অফিসারের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তারপর লোকনায়ক হাসপাতালে আরও দু’জনের মৃত্যু হয়।  

মৃত্যুসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি উত্তর-পূর্বের ব্রহ্মপুরী-মুস্তাফাবাদ এলাকায় ভোর সাড়ে ৪টা থেকে নতুন করে পাথর ছোড়াছুড়ি শুরু হয়। গোকুলপুরীতে একটি পুরনো জিনিসপত্রের দোকানেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। দমকলের একটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দিল্লিতে কারফিউ জারি করা হলেও থামানো যাচ্ছে না সংঘাত। পুলিশের গুলির ভয় উপেক্ষা করেই ভোর সাড়ে ৪টা থেকে নতুন করে পাথর ছোড়াছুড়ি শুরু হয় উত্তর-পূর্বের ব্রহ্মপুরী-মুস্তাফাবাদ এলাকায়। এসময় গোকুলপুরীতে একটি পুরনো জিনিসপত্রের দোকানেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বুধবার জোহরিপুরায় পতাকা মিছিল করে পুলিশ। গোকুলপুরীর ভাগীরথী বিহার এলাকায় পতাকা মিছিল করে সিআরপিএফ, এসএসবি, সিআইএসএফ এবং পুলিশের যৌথ বাহিনী। সীলামপুর, জাফরাবাদ, মৌজপুর, গোকুলপুরীতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।